22 May, 2012

২২ মে


Read more...

12 May, 2012

দ্যা স্পীড : বিশ্বায়ন ও গতিবাস্তবতার চলচ্চিত্র

পদ্মা সেতুর ভাগ্যে কী আছে তা এখনো আমরা জানি না, বিশ্ব ব্যাংকের আনীত দুর্নীতির অভিযোগগুলোর প্রমাণও নাকি এ সপ্তাহে অর্থমন্ত্রীর কাছে দেয়া হয়েছে, আর নতুন যোগযোগ মন্ত্রী বলছেন- চায়না নয়, মালয়েশিয়ার অর্থায়নেই হবে পদ্মা সেতু। তিনি বলেছেন, পদ্মা সেতু হলো আমের মতো- সিজন ব্যাপার না, ব্যাপার হলো, জনগণের দাবীকৃত আম পাওয়া যাবে কিনা সেটা। তবে রাষ্ট্রিক কূটনৈতিক গতিবিধির দিকে লক্ষ্য রেখেই বোধ করি, এম অনন্ত জলিল তার সর্বশেষ মুক্তিপ্রাপ্ত ছবিটিকে বাংলাদেশ মালয়েশিয়া যৌথ প্রযোজনা বানিয়েছেন। ছবির পুরো নাম “দ্যা স্পীড- ডু অর ডাই”। ছবির নামই আলাদা স্বাদের। হালের বাংলা ছবিগুলো যখন একঘেঁয়ে নাম আর একঘেঁয়ে শাকিব খানের বিরক্তিকর পুনরাবৃত্তি, তখন অনন্ত জলিল বাংলা চলচ্চিত্রের মরুভূমিতে এক পশলা বৃষ্টি না, বিনোদনের বন্যা বইয়ে দেন। তিনি পারবেন, তার ক্ষমতা আছে, সে ইংগিত অবশ্য তিনি “খোঁজ দ্য সার্চ’-এই রেখেছিলেন। এরপর মাঝে দমকা হাওয়ার মতো বয়ে গেছে – “হৃদয় ভাঙা ঢেউ, হার্ট ব্রেকিং ওয়েভ”। তিন নম্বর সিনেমায় এসে অনন্ত এবার নিজেকেই অতিক্রম করেছেন। সিনেমা ইন্ডাস্ট্রির কোনো কিং খান তার প্রতিদ্বন্দ্বী নয়, অনন্ত নিজেই যেনো নিজের চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী। অভিনয়ে, সংলাপে, বাচনে, বডি ল্যাংগুয়েজে, ফাইটিংয়ে এবার তিনি নিজেকে এক অন্য উচ্চতায় নিয়ে গেছেন। এ উচ্চতায় গমনের প্রমাণের জন্য বৌদ্ধমুর্তির ছবি প্রয়োজন হয় না, সমবেত দর্শকের মুহূর্মুহু করতালি হর্ষধ্বনিই তার প্রমাণ।
 বছর দুয়েক আগে বিশ্বের অর্থনৈতিক মন্দায় যখন চাকরি বাজারের দুর্দশা, ছাটাই আর ব্যবসা বন্ধ যখন সপ্তাহ শুরুর সংবাদ শিরোনাম তখন অনেকেই আবার পড়ালেখায়, বিশেষ করে বিজনেস স্কুলের এমবিএ প্রোগ্রামে ফিরে গেছে। বিশ্বের অর্থনীতি নতুনভাবে মোড় নিচ্ছে, সন্ত্রাসবাদ কমছে লাদেনের মৃত্যুর পর, আন্তর্জালিক সামাজিক সাইটগুলো আরব বসন্ত ঘটিয়ে দিচ্ছে, কিন্তু কী ঘটছে এমবিএ পড়তে যাওয়া হতভাগাদের কপালে? আর্থ-সামাজিক সংকটের এমন প্রশ্ন নিয়েই শুরু হয়েছে দ্যা স্পীড – ডু অর ডাই। এমবিএ পাশের পরেও যখন ঘুষ না দেয়ায় চাকরি হয় না এক হতভাগার, নায়ক অনন্য (অনন্ত জলিল) তাঁর বাসার গেইটেই চাকরি অফার করেন। কাহিনীতে অনন্য এক ধনাঢ্য ব্যবসায়ী, এজেআই গ্রুপ অব ইন্ডাস্ট্রিজের মালিক। সসস্ত্র প্রহরী আর বিলাসবহুল গাড়িতে চড়ে তিনি অফিসে যান, পথে ল্যাপটপে কাজ করেন, দারুণ সব স্যুট টাই পরে নিজেই মাঝে মাঝে কারখানার যন্ত্রপাতির জটিল সব সমস্যা দূর করে দেন। অন্যদিকে ব্যক্তিগত জীবনে তিনি একা, ভাতিজি দৃষ্টি (দীঘি)-ই তার জীবন। দৃষ্টিকে দেখাশোনার জন্য দু-দু-টো হাতি সার্বক্ষণিক নিয়োজিত, এরপরও চাচ্চুর আদর না পেলে বাবা-মা হারানো দৃষ্টির জীবন চলে না। এইটিজের ম্যানেজমেন্ট স্কুলের হট টপিক হয়ে ওঠা “ওয়ার্ক-লাইফ-ব্যালান্সিং” যখন এখনো বি-স্কুলের কেইস স্টাডি হয়ে থাকছে, এ ছবির কাহিনী এবং নায়ক অনন্যের ভূমিকা অবশ্যই অনুকরণীয় ও অনুসরণীয় হতে পারে। আপত্তি শুধু একটা জায়গায়, ছোট্ট ভাতিজির সংগে নাচের দৃশ্যে দুজন প্রায়ই নায়ক-নায়িকার মত করে নেচে উঠছিল। দীঘিরও বোধ করি শিশুশিল্পী হয়ে কাটানোর দিন ফুরালো।

যদিও গত সপ্তায় সিপিডি সন্তুষ্টি প্রকাশ করেছে, দেশের মুদ্রাস্ফীতির হার এক অংকের ঘরে নেমে এসেছে, বাজার পরিস্থিতি কিন্তু ভিন্ন। আজ বিকেলেও মিরপুর বাজারে আলুর কেজি ছিল – বিশ টাকা। বাণিজ্য মন্ত্রী এবং বিমানমন্ত্রী ঘর বদলিয়েছেন কয়েক মাস হলো, বাজারের আগুন কি কমলো? হয়তো এ কারণেই গার্মেন্টস ব্যবসায়ী অনন্য সব কর্মচারীর বেতন ৩০ ভাগ বাড়িয়ে দেন। ভাবছিলাম, বিমান মন্ত্রণালয়ের কী হবে? সিংগাপুরে এখনো একটি ক্রাফট পড়ে আছে যন্ত্রের অভাবে। বিমানের পরিচালনা পরিষদেও রদবদল ঘটছে। অভিযোগ, বিমান লোকসান দিচ্ছে প্রতিবছর। কিন্তু, কাহিনীর নায়ক ব্যবসায় লস দেন না, তিনি প্রফেশনাল কিন্তু ক্রিমিনাল নন। তাই বাংলার আকাশে উড়ে আসে পাকিস্তান এয়ার লাইন্সের প্লেন। শোঁ শোঁ শব্দ করে ল্যান্ড করে। কে নামলো? ঢাকা এয়ারপোর্টের অ্যারাইভাল ফ্লোর। দশ বছর ইংল্যান্ডে ফ্যাশন ডিজাইনিঙ্গের ওপরে পড়ালেখা শেষ করে দেশে ফিরেছেন নায়িকা। দশ বছরে দেশ অনেক বদলে গেছে, কিন্তু নায়িকা বাংলা ভোলেননি। ভাঙা ভাঙা আদুরে গলায় বাংলা বলেন। নায়িকা বাঙালি নন, মালয়েশিয়ান। তাই বস্তাপঁচা শাকিব খানের নায়িকা অপু বিশ্বাসের মত তার গড়ন নয়। মালয়েশিয়ান নায়িকা পারভিন, কাহিনীতে নাম সন্ধ্যা, লম্বা সুশ্রী; দর্শকের অসন্তুষ্টি থেকে যাবে সুষম পুষ্টির অভাব চিহ্নে। দর্শকের হয়তো আপত্তি নেই, পেছনের সারির বোদ্ধা জানালেন, মালয়েশিয়ান মেয়েগুলো এরকমই। ততক্ষণে সিনেমার এক ঘণ্টা শেষ।

গত কদিনের পত্রিকায় সংবাদ হচ্ছে – ঢাকার গুলশানের ওয়ান্ডারল্যান্ড পার্ক ভেঙে দেয়া হচ্ছে। হাইকোর্ট রুল জারি করেছে কেন ভেঙে পাবলিক সম্পত্তি ঘোষনা করা হবে না? দ্যা স্পীড চলচ্চিত্রে ওয়ান্ডারল্যান্ড পার্ক এক গুরুত্বপূর্ণ স্থাপনা হিসেবে কাজ করে। এখানেই নায়ক নায়িকার প্রথম খুনসুটি অভিমান শুরু। ম্যাজিস্ট্রেট রোকনুদ্দৌলা যখন রাজউকের লোকজন নিয়ে ওয়ান্ডারল্যান্ড ভাঙার সিদ্ধান্ত নিচ্ছিলেন, তখন কাহিনীতে নায়িকা নায়কের প্রেমে পড়ে গেছে। কল্পনায় গানও হয়ে গেছে, “আমি রোমিও তুমি জুলিয়েট, প্রেম করতে আমরা আর করবো না লেট”। কল্পনার গানেই থেমে থাকেনি, নায়িকা চাকরি পেয়ে গেছে নায়কের অফিসে, গার্মেন্টস ব্যবসা + ফ্যাশন ডিজাইনার = সোনায় সোহাগা। কিন্তু, ওয়ান্ডারল্যান্ডের কারণে নায়িকা চাকরি হারায়। নায়কের অনুমতি না নিয়ে দৃষ্টিকে ওয়ান্ডারল্যান্ডে বেড়াতে নিয়ে যাওয়ার অপরাধে নায়িকাকে ক্লোজ করা হয়, এবং একই সন্ধ্যায় বিয়ের প্রস্তাব পাঠানো হয় অনেক দামী দামী শাড়ি গহনাসহ। বিয়েও হয় খুব দ্রুত। পরের দৃশ্যে দেখা যায় - নায়ক নায়িকাকে নিয়ে বাসর ঘরে ঢুকছেন, দর্শক অপেক্ষায় থাকে, সিনেহলে পিনপতন নীরবতা, কারণ – দর্শক জানে, এখানে চিরায়ত মালাবদলের গান হবে না, ধপ করে বাতি নিভে যাবে না; এখানে অন্য কিছু ঘটবে। এবং বাংলা চলচ্চিত্রের বাসর রাতের, নায়কের ভাষায় বিশেষ রাতের, ইতিহাসে এক অভূতপূর্ব ঘটনা ঘটে। খাটের চারপাশে নায়ক নায়িকা কানামাছিভোঁভোঁ এবং ছোঁয়াছোয়ি খেলায় মেতে ওঠে। দর্শকের দমবন্ধ ভাব কেটে যায় যখন একে অন্যকে জাপ্টে বিছানায় গড়াগড়ি খায় এবং চাদরে নিজেদের ঢেকে নেয়। বাংলা চলচ্চিত্রের বিরুদ্ধে অশ্লীলতার যে অভিযোগ আমরা শুনি, সেটার বিরুদ্ধে এ যেনো এক দৃষ্টান্তমূলক প্রতিবাদ।

মাঝখানে আলু হয়ে গেছেন হিলারীবান্ধব প্রফেসর ইউনুস, হরতালে পোড়ানো বাসের নিভুনিভু আগুনে তাকে পুড়িয়ে নিচ্ছে লীগ-দল, এবার নতুন করে এলেন স্যার আবেদ আর সামবাদী বড়ুয়া। চ্যালেঞ্জ চারিদিকে। কোথায় আমাদের গন্তব্য ভিশন ২০২১? দ্যা স্পীড এখানেও থেমে নেই; সমকালীন চ্যালেঞ্জ যুক্ত করতে দুদুবার বলা হয়েছে – ডিজিটাল বাংলাদেশের স্বপ্নের কথা, নায়িকা বলছে - “এত দেরি করে অপিস গেলে ডিজিটাল বাংলাদেশ কী করে করবে বাইয়া?” কিন্তু, প্রিয় দর্শক আপনারা জানেন – লড়াই ছাড়া কোনো কিছু হয় না, জীবনের পথ বিশেষ রাতের বিছানার মত গোলাপ বিছানো নয়। কাহিনীতে ভিলেন হয়ে আসে কিবিরিয়া খান, এক কালের পর্দাকাঁপানো নায়ক- আলমগীর। সাথে যোগ দেয় এন্ড্রু, ইয়াদকিদ্দ নিনো অব খোঁজ দ্য সার্চ। ব্যাপক একশন আর গোলাগুলির পরে দৃষ্টি মারা যায়, নায়ক নায়িকা ছুটে যায় মালয়েশিয়া, কুলায়ালামপুর, লংকাউবি, আর কতো জায়গায়। নায়িকা কিডন্যাপড হয়। নায়ক গুলি খায়। আসে সেকেন্ড নায়িকা ক্রিস্টিনা (রাশিয়ান মেয়ে নানা)। সেও মারা যায়। কাঁচঘরে বন্দী নায়িকা, অক্সিজেন কমে যাচ্ছে, বাড়ছে কার্বণ-ডাই-অক্সাইড, গ্লোবাল ওয়ার্মিং কি উপেক্ষিত থাকতে পারে? আই-রে প্রযুক্তি ব্যবহার করে নায়িকাকে উদ্ধার করতে হবে। নায়ক যেন সেই ডালিমকুমার, ভ্রমরার ভেতরে লুকানো আছে দৈত্যের প্রাণ। কুয়ালালামপুরের রাস্তায় একা একা নায়ক গান গেয়ে বেড়ায়, ঘোড়া দৌড়ায়, ডুব সাতারে মাঝ সমুদ্রে চলে যায়। আর একটা একটা করে শত্রু খতম করে।

প্রশ্ন থেকে যায়, ছবির নামকরণের সার্থকতা কোথায়? কীসের স্পীডের কথা বলা হচ্ছে? কীসের জন্য ডু অর ডাই? এসব প্রশ্নের উত্তর ঠিক সরলরৈখিক নয়, বহুমাত্রিক ও জটিল এক ক্রিস্টাল মেইজ। দর্শককে শেষ দৃশ্য পর্যন্ত অপেক্ষা করতে হবে, যখন আলমগীর বলবে স্পীডের কথা। কিন্তু সেটাই শেষ উত্তর নয়। সমগ্র চলচ্চিত্রে, দৃশ্যায়নে, ছবির নামকরণ স্বার্থক হয়ে ধরা দেবে। নায়ক এক লাফে শুন্যে উঠে যান, পতেঙ্গা বিচে গুলি খাওয়া দৃষ্টিকে মুহূর্তে নিয়ে আসেন ঢাকার কেয়ার হসপিটালে। গাড়ি চালনা, স্লো মোশনে হাঁটা, সজোরে বলা ইস্টপ কিংবা ইস্কুল – এসবই স্পীডের মাল্টিডাইমেনশ্নাল স্যালুলয়েড প্রচেষ্টা। ল্যাটিন জাদুবাস্তবতার বিপরীতে এ যেন, গতিবাস্তবতা।

পরিশেষে নায়ক অনন্তের কথা বলতেই হয়। তিনি একজন অসম্ভব পরিশ্রমী অভিনেতা। কাহিনীর ৯০ শতাংশ দৃশ্যে তিনি আছেন। প্রচুর মারপিট করেছেন, দৌড়িয়েছেন, দৌড়েছেন, ঘাম আর রক্ত ঝরিয়েছেন। অনুমান করি, দৃশ্যগুলো বারবার নিতে হয়েছে। আমার বারবার মনে পড়ে যাচ্ছিল – খোঁজ দ্য সার্চের কথা। আগের মতোই নায়ক এ সিনেমায় অলরাউন্ডার, বাফ ব্রেস্টেড স্যান্ডপাইপার সিন্ড্রম এখনো রয়ে গেছে। তবে সার্বিকভাবে-  তিনি নিজেই বোলার, নিজেই ব্যাটসম্যান, নিজেই ফিল্ডার। তাই সমস্ত কৃতিত্ব তার একার। হাবিব-ন্যান্সির কন্ঠে “অমর প্রেম” গানের ক্রেডিট নিতে পারেন ক্যামেরাম্যান। মালয়েশিয়ান নায়িকা পারভীন বাংলা চলচ্চিত্রে নিয়মিত থাকবেন, অন্ততঃ অনন্ত জলিল সে চেষ্টা করবেন বলে বিশ্বাস করি। ছবির শেষ দৃশ্যে মালয়েশিয়ান ট্যুরিজম বোর্ডের প্রমোশন হয়েছে আদালতের বক্তব্যে। নায়ক অনন্য চার মিলিয়ন রিঙিট পুরস্কার পেয়েছেন। আশা করছি, আমাদের নীতিনির্ধারকরা জাতীয় পর্যায়ের পুরস্কার সম্মাননা দিয়ে নায়ক প্রযোজককে সমর্থন দিয়ে যাবেন।

প্রিয় ব্লগার দেখে আসুন, দ্যা স্পীড।
বিনোদিত হবেন, পয়সা উসুল হবেই!

Read more...

  © Blogger templates The Professional Template by Ourblogtemplates.com 2008

Back to TOP