06 November, 2007

আমার সকল দুয়ার বন্ধ যখন

আজ অনেকদিন পর আমার জানালাটিকে মনে পড়ছে।
জানালা - জানালার গ্রীল - ফাঁক দিয়ে আকাশ।
গত সপ্তায় এখনকার ম্যাচবক্স জীবনের জানালার ছবি তুলেছিলাম।
আকাশ নেই।
এ যেন আমারই নির্বাসনের নীল নীড়।

গত বিকেলে দুম করে মনে পড়লো অনেক আগের, বোধ হয় দশ বছর আগের, এক দিনের কথা।
এক ঝাঁক পাখি উড়াল দিচ্ছে আকাশে।
গোল সীমানা ধরে বারবার চক্কর খাচ্ছে। সময় তখন এগারোটা।
পাখির ডানার রোদের ঝিলিক, চিকচিক।
এই আছে এই নেই।
ঠিক নিচেই বাড়ীর সামনে নারকেল গাছ।
শীতল ছায়া।
এই দিনটিকে, সময়টিকে, কেনো মনে পড়ে জানি না।
কেনো মনে পড়ছে জানি না।

গত পরশু মাঝরাতে ঘুম ভেঙে গেছে অ্যাম্বুলেন্সের সাইরেনের শব্দে।
এমনটা আগেও হয়েছিলো।
মাঝরাতে সুকুমভিতের বুক চিড়ে অসহায় বিপন্ন স্বজনের উদ্বিগ্ন মন।
নির্মলেন্দু গুন যুবতী মাধবী নিয়ে ফিরে যেতে চেয়েছিলেন ঘরে।
পল্টনের সমাবেশ থেকে কবির ঘরে ফেরা হয়েছিল হয়তো।
ভীষণ হিংসে হয় মি. গুন।
আমি এখনো রাস্তার ওপাশে অপেক্ষায়।
দিন পেরিয়ে গেছে এবং যাচ্ছে।
কেবলই রিলাক্সেনের মোহ।

ইয়াহু, হটমেইল, ব্লুবোটল, জিমেইলের অ্যাকাউন্টে এখন জিমেইলই ভালো লাগে।
এমএসএন এখন এক ভীষণ স্মৃতিময়তা।
মান্না দে'র কফি হাউজে নচিকেতা গিয়ে 'চেনা চেনা কফির গন্ধ' পেয়েছিল, পুরনো পাখাগুলো দেখেছিল।
আমার কফি হাউজে আমি বর্তমান থেকে অতীতে পালিয়ে যাই।
চেনা কফির গন্ধ ভীষণ মাদকতাময়।
আমি নেশায় বুঁদ হয়ে থাকি।
জানি এবং বুঝি - পাশের চেয়ার ও চেয়ারের মানুষগুলো নেই।
অহেতূক লগইন-লগআউট-ইনফোনকল-বিজি-আউটটুলাঞ্চ।
এনএসএনসি - নষ্ট শহরের নষ্ট ছেলে।
নষ্ট ছেলের আবার কষ্ট থাকে নাকি?
যারা লাল কষ্ট - নীল কষ্টের প্রলেপে গোলাপী মাছির ডানায় ভর করে, তাদের জন্য - বদলে যাওয়া মানুষ হয়ে খুব দূরে যাওয়া যায় কি।
রেনেঁসা'র জবাবটাই হয়তো ঠিক - দিন বদলের মেলাতে, রঙ বদলের খেলাতে - - -।

মনে হচ্ছে দিনগুলো কেটে যাক।
যত দ্রুত সম্ভব।
কোনো নির্দিষ্ট লক্ষ্যে নয়, আকাঙ্ক্ষায় নয়, ভালোবাসায় নয়, বিষন্নতায় নয়, ওপারে ভেলা ভাসানোয় নয়, কষ্টের নদীতে নয়, পরাজিত মেঘের দেশে নয়, জরদগব শহরের মৃত্যুতে নয়।
কোথায়?


এতোদিন মনে হচ্ছিলো একটা দড়ির ওপর দাড়িয়ে ছিলাম।
টের পেয়েছি - আকাশের মরা ঈশ্বর ও তার নষ্ট মানুষেরা হাততালি দিচ্ছিলো ক্রমাগত।
বায়োস্কপের নেশা।
এখন মনে হলো - পড়ে গেলাম।
খাদ থেকে খাদের গভীরে।

শৃঙ্খলিত কষ্টগুলোকে ব্যর্থতার নিঁপুন বিন্যাসে গাঁথতে ব্যর্থ মানুষের কোথাও যাবার থাকে না।
একে একে সব দুয়ার বন্ধ হয়ে যায় - - -।

.

.

.

3 মন্তব্য::

নিঘাত সুলতানা তিথি 11 November, 2007  

কবিতা!
কেমন ঘোরের মধ্যে ঢুকে পড়লাম। বড় কবিতাগুলো এরকম কাহিনীর মতো টেনে নিয়ে যায়...। এটা সচলে দেবেন না? দিন না।

অপ্রাসঙ্গিক একটা কথা, আপনার লিঙ্কে দেখলাম আমার ব্লগটা লেখা আছে "প্রজাপতির মেঘদল"। এখন কিন্তু ব্লগের নামটা বদলেছে।

আনোয়ার সাদাত শিমুল,  11 November, 2007  

কবিতা না।
দিনলিপি।
বেশি এন্টার দেয়ায় কবিতার মতো হয়ে গেছে।
ধন্যবাদ।

অনুভূতিশূন্য কেউ একজন,  13 November, 2007  

হুমম।
কবিতা না, জানি। শিমুল কবিতা লিখতে পারেনা :-)

শিমুল শব্দ সাজায়, শব্দ নিয়ে খেলা করে।
অন্যদের মনে ছোঁয়া দিয়ে যায় সে শব্দবিন্যাস।

আজকাল ভাবনাগুলো মরে গেছে। ভাবতে পারিনা এরকম করে আর। বিশ্বাস ভাঙার পর শূন্য কঙ্কাল হয়ে পড়ে থাকা অনুভূতিশূন্য কেউ একজনের পৃথিবীর তীব্র কষ্টগুলো প্রকাশিত হওয়ার সুযোগ পায় না।

আকাশের মরা ঈশ্বর ও নষ্ট মানুষদের ভণ্ডামির বিরুদ্ধে শিমুলের এ প্রতিবাদে আমারও দাঁড়িয়ে পড়তে ইচ্ছে করে।
শিমুলকে ঈর্ষা হয় - ইসস এভাবে যদি নিজের দুঃখগুলোকে উড়িয়ে দিতে পারতাম।

  © Blogger templates The Professional Template by Ourblogtemplates.com 2008

Back to TOP