03 January, 2007

অনুবীক্ষণে 'বীক্ষণ'

বাংলা সাহিত্য ও সমাজ চিন্তাকে পালটে দেয়ার বিপ্লবী ভাবনা নয়, বরং সাহিত্য ইতিহাসে সাক্ষী হওয়ার সুকোমল বিশ্বাস নিয়ে ইন্টারনেটে প্রকাশিত হয়েছে ই-পত্রিকা ’বীক্ষণ’। সমাজ ও সংস্কৃতির সমকালীন ছায়ার পাশাপাশি জনপদ ছোঁয়ার স্বার্থক প্রয়াস লক্ষ্য করা গেছে বীক্ষণের প্রথম সংখ্যায়। সুখপাঠ্য সব কবিতা, গল্প আর নিবন্ধের এ সংকলন নিঃসন্দেহে আগ্রহী পাঠকের দৃষ্টি আকর্ষণ করবে।

এগারো জন কবির বাইশটি কবিতা স্থান পেয়েছে বীক্ষণের সূচনা সংখ্যায়। উত্তরাধুনিক ভাবনায় বিমূর্ত কবিতা নির্মাণে জটিল শব্দ প্রয়োগে কবিতা যাদের কাছে বোধগম্যতার বাইরে বিষয় হয়ে যায়, কিংবা (আমার মতো) যারা কবিতা কম বুঝেন তাদের কাছেও ভালো লাগবে বীক্ষণের কবিতাগুলো। জয়িতা গাংগুলীর ’রান্নাঘরে সুচেতনা’, শরত চৌধুরীর ’ব্রøান্ড’, কৌশিক আহমেদের ’আমি তোমাকেই জনমত ভাববো’ কিংবা রোহণ কুদ্দুসের ’পিতা’; সাধারণ পাঠকের মন ছুঁয়ে যাবে নিমিষে।

গল্প পড়ুয়াদের জন্য রয়েছে চারটি দূর্দান্ত ছোট গল্প। বিপুল দাসের ’কান্নায় আলাদা মাত্রা এনে দেয়’ ও সুমেরূ মুখোপাধ্যায়ের ’বন্দুকের নলই ক্ষমতার প্রকৃত উতস’ গল্পের সুবিনয়-সুমনরা পাঠকের সামনে অনেক গুলো প্রশ্ন ছুঁড়ে দেয়। জীবনের ভগ্নাংশ প্রকাশ পায় অন্য মাত্রায়। এ রকমই আরেকটি গল্প ’রাহেলা’; নিঘাত সুলতানা তিথির ঝরঝরে গদ্যে উঠে এসেছে সামাজিক কাঠামোয় নিপীড়িত নারী জীবন। তবে সবকিছুকে ছাপিয়ে হাসান মোরশেদের ’শুন্য কড়চা’ জ্বলজ্বল করে বীক্ষণের গল্প ভান্ডারে। অসাধারণ ভাষাশৈলী, গল্প বলার দূর্দান্ত দক্ষতা পাঠককে প্রথমেই কব্জা করে। এক পর্যায়ে "...অরুনারে কতো বুদ্ধ, কতো মুহম্মদ, কতো যীশু এলেন গেলেন। সমুহ বিপন্নতা থেকে তবু মানুষের পরিত্রান হলো কই? কতো দর্শন, কতো ধর্ম, কতো তন্ত্র! তবু হত্যা, তবু ধবংস তবু হাহাকার" পড়ে পাঠক চমকে যায়। আবার প্রথম থেকে পড়া শুরু করে। এরপরও মনে হয় - কী জানি কি বাকী রয়ে গেল! গল্পের মুগ্ধতার রেশ থেকে যায় অনেকক্ষণ...।

অনলাইনে বসে বড় লেখা পড়ার অভ্যাস আপাতঃ দৃষ্টিতে দূর্লভ। এছাড়াও প্রবন্ধ পড়ার প্রতি পাঠকের আগ্রহ কমে যাচ্ছে; কথাটি স্বীকার করেই পাঁচটি নিবন্ধ ছপিয়েছে বীক্ষণ। বৈশিষ্ট্যের দিক থেকে সবকটি লেখাই উঁচু মানের। গবেষণা ধর্মী লেখাগুলো চমতকারভাবে সামাজিক সংকট ও সম্ভাবনাকে প্রকাশ করে। বিশেষভাবে অভিজিত মজুমদারের " ’উন্নয়নের’ সন্ত্রাসবাদঃ এক উত্তর বঙ্গীয় উপাখ্যান" এবং সব্যসাচী সরকারের "তাড়িত আর্সেনিক" পাঠকের মনে চিন্তার খোরাক যোগাবে। সীমানা পেরিয়ে সমস্যা সমাধানে সহযোগী নিবন্ধগুলো প্রকাশ অব্যাহত থাকবে - এমনটাই পাঠকের প্রত্যাশা।

কবিতা, গল্প আর নিবন্ধের সাথে রয়েছে ’প্রতর্ক্য’ ও ’মনের ঘুড়ি’ বিভাগ; যেখানে স্থান পেয়েছে অন্তরবাদ্যি বাজানো তিনটি লেখা। লেখক পরিচিতি দেয়া হয়েছে নতুন আঙ্গিকে। পাঠকদের কাছ থেকে লেখা আহবান করার পাশাপাশি মতামতও চাওয়া হয়েছে।
ওয়েব ডিজানিংসহ সামগ্রিকভাবে যথেষ্ঠ প্রতিশ্রুতির ছাপ রয়েছে বীক্ষণের প্রথম সংখ্যায়। এ প্রত্যয়ের উপর ভিত্তি করেই আগামীতে বীক্ষণ তার নিজস্ব অবস্থান সৃষ্টি করে নিবে। ঝকঝকে অফসেটে ছাপা লিটল ম্যাগ যখন ব্যবসায়িক স্বার্থবৃত্তির অভিযোগে হারিয়ে যেতে বসেছে, অনলাইনে রুচিশীল সাহিত্য পত্রিকার সংকট যখন প্রকট হয়ে উঠেছে - তখন বীক্ষণ বেঁচে থাক আগামীর দিন গুলোয়, সৃজনশীলতার নতুন মাত্রায়।

0 মন্তব্য::

  © Blogger templates The Professional Template by Ourblogtemplates.com 2008

Back to TOP